পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩০ অক্টোবর ২০১৪

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড

১৩,২৯৫ বর্গ কিলোমিটার আয়তন বিশিষ্ট বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম ( বর্তমান রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা) অঞ্চলে প্রচুর সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও বৃটিশ ও পাকি¯তান শাসনামলে এ অঞ্চলের আর্থ-সামাজিক অবস্থা পরিবর্তনের জন্য তেমন কোন কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। ফলশ্র“তিতে দেশের অন্যান্য অঞ্চল অপেক্ষা এ পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চল অবহেলিত ও পশ্চাৎপদ থেকে যায়।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা অর্জনের পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নেতৃত্বে বিভিন্নমুখী ও বাস্তবভিত্তিক কর্মসূচী গ্রহণে মাধ্যমে এ অঞ্চল ধাপে ধাপে উন্নয়নের গতিধারায় যুক্ত হতে শুরু করে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই সর্বপ্রথম রাষ্ট্র প্রধান হিসেবে এ অঞ্চলের পরিকল্পিত উন্নয়ন নিয়ে চিন্তা করতে শুরু করেন। এ অঞ্চলের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষির উন্নয়নসহ সরকারীর চাকুরী ও স্থানীয় চাকুরীতে পার্বত্যবাসীদের  যৌক্তিক অংশগ্রহণ প্রভৃতি বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় প্রেক্ষিতে সরকার পার্বত্য অঞ্চলে “আঞ্চলিক উন্নয়ন পরিকল্পনা” এ ধারণার আলোকে ১৯৭৬ সালে ৭৭ নং অধ্যাদেশ বলে “পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড” প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বোর্ড এ অঞ্চলে কৃষি, শিক্ষা, যাতায়াত, অবকাঠামো নির্মাণ, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি এবং সমাজকল্যাণমূলক কাজে নিয়োজিত থেকে সার্বিক উন্নয়নের জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড সরকারের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে সু-সম্পর্ক বজায় রেখে পার্বত্যাঞ্চলের উন্নয়নের ধারাকে আরো গতিশীল করতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রকল্প প্রণয়ন এবং বা¯তবায়নের মাধ্যমে। তন্মধ্যে সমন্বি^ত পাহাড়ী খামার উন্নয়ন প্রকল্প, কর্মসংস্থান এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন প্রকল্প, কমলা ও মিশ্র ফসল চাষ প্রকল্প, রাবার ও উদ্যান উন্নয়ন প্রকল্প এবং সমন্বি^ত সমাজ উন্নয়ন প্রকল্প সমূহ অন্যতম। বর্তমানে পার্বত্যাঞ্চলের জনগণের জীবনমান আগের তুলনায় অনেক পরিবর্তন হয়েছে। শিক্ষা,স্বাস্থ্য এবং যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নয়নের ফলে দারিদ্র্র্য যেমন নিরসন হচ্ছে তেমনি জনগণের আয় এবং জীবনযাত্রার মান ও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের জনসাধারণের সার্বিক উন্নয়ন তথা কৃষি, যাতায়াত, শিক্ষা, ক্রীড়া-সংস্কৃতি, ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প, সমাজ কল্যাণ, বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ ও কারিগরী দক্ষতা উন্নয়নসহ আয়বর্ধনমূলক খাতে নিষ্ঠার সাথে বহুমূখী প্রকল্প বা¯তবায়ন করে আসছে।

ছাড়াও বর্তমান সরকারের ভিশন ২০২১ বা¯তবায়নকল্পে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যকে সামনে রেখে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড আইসিটি ভিত্তিক কর্মসূচী হাতে নেয়। পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে বসবাসরত বেকার জনগোষ্ঠীকে তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ের উপরে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনবলে রূপান্তর করে আত্ম-কর্মসংস্থানের পথ সৃষ্টি করাই এর মূল লক্ষ্য।

দশম জাতীয় সংসদের ২য় অধিবেশনের ১৯৭৬ সালে ৭৭ নং অধ্যাদেশ বাতিল করে তদস্থলে গত ০২/০৭/২০১৪ তারিখে  “পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড আইন,২০১৪”  পাস হয়েছে। মহামান্য রাষ্ট্রপতি ০৮/০৭/২০১৪ তারিখে উক্ত বিলটিতে তাঁর সদয় সম্মতিদান করেছেন এবং ঐ তারিখেই বাংলাদেশ গেজেটের অতিরিক্ত সংখ্যায় ২০১৪ সনের ৮নং আইনরূপে প্রকাশিত হয়েছে।

 

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বিভিন্ন উন্নয়নমুখী কার্যক্রম বাস্তবায়নে নিম্নরূপ কর্মপদ্ধতি অনুসরণ করে থাকে:

১। পার্বত্য  জেলার  জনসংখ্যা,  আয়তন ও  অনগ্রসরতা বিবেচনাপূর্বক পার্বত্য  জেলাসমূহের  উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন প্রকল্প ও স্কিম প্রণয়ন;
২। পার্বত্য জেলাসমূহের উপজেলা সদর, ইউনিয়ন ও গ্রামসমূহে অনধিক ২ (দুই) কোটি টাকার প্রকল্প ও  স্কিম অনুমোদন;
৩। অনুমোদিত প্রকল্প/স্কিমসমূহ বাস্তবায়ন এবং বাস্তবায়ন কার্যক্রম তদারকি;
৪। বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার আর্থিক বা কারিগরি সহায়তায় পরিচালিত উন্নয়ন প্রকল্প ও স্কিম বাস্তবায়ন;
৫। উপরিউক্ত কার্যাবলী সম্পাদনের নিমিত্ত প্রকল্প/সংশ্লিষ্ট প্রয়োজনীয় আনুষঙ্গিক কার্য সম্পাদন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে বোর্ড উপরিউক্ত দায়িত্ব পালন করবে মর্মে বিধান করা হয়েছে।

 

সাংগঠনিক কাঠামো ও জনবল:

১। চেয়ারম্যান

২। ভাইস- চেয়ারম্যান (অন্যূন যুগ্মসচিব পদমর্যাদাসম্পন্ন);

৩।পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ কর্তৃক মনোনীত এর একজন প্রতিনিধি;
৪। জেলা প্রশাসক, রাংগামাটি  (পদাধিকারবলে);
৫। জেলা প্রশাসক, খাগড়াছড়ি  (পদাধিকারবলে);
৬। জেলা প্রশাসক, বান্দরবান  (পদাধিকারবলে);
৭। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে মনোনীত অন্যূন উপসচিব পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা;
৮। রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, ও খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ কর্তৃক মনোনীত সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের একজন করে প্রতিনিধি;
৯।সদস্য প্রশাসন (অন্যূন উপসচিব পদমর্যাদাসম্পন্ন বোর্ডের সার্বক্ষণিক সদস্য)
১০। সদস্য বাস্তবায়ন (অন্যূন উপসচিব পদমর্যাদাসম্পন্ন বোর্ডের সার্বক্ষণিক সদস্য)
১১। সদস্য অর্থ (অন্যূন উপসচিব পদমর্যাদাসম্পন্ন বোর্ডের সার্বক্ষণিক সদস্য)
১২। সদস্য পরিকল্পনা (অন্যূন উপসচিব পদমর্যাদাসম্পন্ন বোর্ডের সার্বক্ষণিক সদস্য)

 

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চলমান কাঠামো:

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রধান হলেন চেয়ারম্যান যিনি সরকার কর্তৃক মনোনীত। ভাইস-চেয়ারম্যান হলেন সরকার কর্তৃক প্রেষণে নিয়োগকৃত যুগ্মসচিব পদমর্যাদর একজন কর্মকর্তা। আর চারজন সার্বক্ষণিক সদস্যের (সদস্য প্রশাসন, সদস্য-পরিকল্পনা, সদস্য-অর্থ এবং সদস্য-বাস্তবায়ন)। প্রত্যেকে সদস্য উপ-সচিব পদমর্যাদা সম্পন্ন কর্মকর্তা।

বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন: http://www.chtdb.gov.bd/


Share with :